Special Policy on Loan Rescheduling and One Time Exit. Ref: BRPD Circular Letter No. 07 dated 19-Mar-2020.

ঋণ পুনঃতফসিল ও এককালীন এক্সিট সংর্কান্ত বিশেষ নীতিমালা।

শিরোনামোক্ত বিষয়ে বিআরপিডি সার্কুলার নং-০৫, তারিখ- ১৬ মে ২০১৯ এবং বিআরপিডি সার্কুলার লেটার নং-০৬, তারিখ- ১৯ মে ২০১৯ এর প্রতি আপনাদের দৃষ্টি আকষর্ণ করা যাচ্ছে। উক্ত সার্কুলার লেটারের মাধয্মে বিআরপিডি সার্কুলার নং-০৫/২০১৯ বর ৭(ক)নং শর্তনিম্নরূপভাবে প্রতিস্থাপন করা হয়ঃ
‘‘৬(ক) সংশ্লিষ্ট ঋণসমূহ ‘বসবমব’ মানে ɢেণিকরণ করতে হবে। তবে, ঁক্ত ঋণসমূহের বিপরীতে ৩১ ডিসেমব্র ২০১৮ তারিখ ভিত্তিক ɢেণিমান বিবেচনায় ɛয়োজনীয় ɛভিশন সংরক্ষণ করতে হবে। ɛকৃত আদায় বয্তিরেকে সংরক্ষিত ɛভিশন কোনভাবের আয় খাতে স্থানান্তর করা যাবে না। ঋণের যে পরিমাণ ধংশ আদায় হবে আনুপাতিক হারে ɛভিশনের সে পরিমাণ ধংশ আয় খাতে স্থানান্তর করা যেতে পারে। সংশ্লিষ্ট ঋণসমূহ ‘বসবমব’ মান বিবেচনায় আবশিয্ক ɛভিশনের সমপরিমাণ ɛভিশন General Provision হিসেবে বিবেচনা করা যাবে ববং ধবশিষ্ট ধংশ Specific Provision হিসেবে সংরক্ষণ করতে হবে।’’
বক্ষণে, ব্যাংকসমূহের মূলধন সংরক্ষণের বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে ব মর্মেসিদ্ধান্ত র্গহণ করা হয়েছে যে, ঋণ পুনঃতফসিল ও এককালীন এক্সিট সংμান্ত বিআরপিডি সার্কুলার নং-০৫/২০১৯ এর আওতায় পুনঃতফসিলকৃত/এককালীন এক্সিট সুবিধাপ্রাপ্ত ঋণসমূহ ‘এসএমএ’ মানে শ্রেণিকরণ করতে হবে। উক্ত ঋণসমূহের বিপরীতে ৩১ ডিসেমব্র ২০১৮ তারিখ ভিত্তিক ɢেণিমান বিবেচনায় ɛয়োজনীয় ɛভিশন হিসাবায়নপূর্বক এর ৫০% জেনারেল প্রভিশন হিসেবে সংরক্ষণ করতে হবে। তবে, ব্যাংক কর্তৃক ইতিপূর্বে রক্ষিত প্রভিশন এর পরিমাণ ৫০% এর অতিরিক্ত হলে তা Specific Provision হিসেবেই সংরক্ষণ করতে হবে। প্রকৃত আদায় ব্যতিরেকে রক্ষিত প্রভিশন কোনভাবেই আয় খাতে স্থানান্তর করা যাবে না।
এতদ্বারা, বিআরপিডি সার্কুলার লেটার নং-০৬, তারিখ- ১৯ মে ২০১৯ এ প্রদত্ত নির্দেশনা বাতিল করা হলো।
ব নিদেশনার্ ধবিলমেব্ কাযকর্র হবে।
ব্যাংক কোম্পানী আইন, ১৯৯১ এর ৪৫ ধারায় প্রদত্ত ক্ষমতাবলে এ সার্কুলার লেটার জারি করা হলো।

Source: https://www.bb.org.bd/mediaroom/circulars/brpd/mar192020brpdl07.pdf

Related Circulars :
;
;


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *