FOLLOWING PROPER PROCEDURE OF NOTE SORTING. REF: DCM CIRCULAR NO. 14 DATED 07.12.2015.

দেশে কার্যরত তফসিলি ব্যাংক কর্তৃক বাংলাদেশ ব্যাংকের গ্যারান্টিতে নোট জমাদানকালে যথাযথভাবে সর্টিং করে জমাদানের নির্দেশনা দিয়ে এ বিভাগ হতে বিভিন্ন সময়ে সার্কুলার/সার্কুলার লেটার ইস্যু করা হয়েছে। কিন্তু ইস্যুকৃত সার্কুলার/সাকুর্লার লেটার এর নির্দেশনাসমূহ যথাযথভাবে পরিপালিত হচ্ছে না মর্মে ইদানীং পরিলক্ষিত হচ্ছে যা মোটেও কাম্য নয়। তফসিলি ব্যাংক কর্তৃক বাংলাদেশ ব্যাংকের গ্যারান্টিতে নোট জমাদানকালে পুনঃপ্রচলনযোগ্য, অপ্রচলনযোগ্য এবং মিউটিলেটেড এ তিনভাগে বিভক্ত করে জমা দিতে হবে। পুনঃপ্রচলনযোগ্য নোটের সাথে অপ্রচলনযোগ্য, মিউটিলেটেড ও দাবীযোগ্য নোট; অপ্রচলনযোগ্য নোটের সাথে পুনঃপ্রচলনযোগ্য, মিউটিলেটেড ও দাবীযোগ্য নোট এবং মিউটিলেটেড নোটের সাথে পুনঃপ্রচলনযোগ্য, অপ্রচলনযোগ্য ও দাবীযোগ্য নোট যেন মিশ্রিত না থাকে তা নিশ্চিত করতে হবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের গ্যারান্টিতে নোট জমাদানকালে বর্ণিত নির্দেশনা যথাযথভাবে পরিপালন না করলে ব্যাংক কোম্পানী আইন, ১৯৯১ (২০১৩ পর্যন্ত সংশোধিত) এর বিধান মোতাবেক সংশ্লিষ্ট ব্যাংক কোম্পানীকে অর্থদন্ডে দন্ডিত করা হবে। নেগেটিভ পয়েন্টের ভিত্তিতে ব্যাংকগুলোকে অর্থদন্ড আরোপ করা হবে এবং নেগেটিভ পয়েন্ট নির্ণয়ের জন্য পরিশিষ্ট ‘ক’-তে বর্ণিত নীতিমালা অনুসরণ করা হবে।

এ সংক্রান্ত কাজের সুবিধার্থে পুনঃপ্রচলনযোগ্য, অপ্রচলনযোগ্য এবং মিউটিলেটেডসহ দাবীযোগ্য নোটের বৈশিষ্ট্য পরিশিষ্ট ‘খ’- তে বর্ণিত হলো। উল্লেখ্য, দাবীযোগ্য নোট বাংলাদেশ ব্যাংকের গ্যারান্টিতে জমা দেয়া যাবে না। এ নোট ১৪ জানুয়ারী ২০১৩ তারিখের পরিপত্র নং-ইহিশাঃ২৩(পলিসি)/২০১৩-১৫ এর নির্দেশনা মোতাবেক বাংলাদেশ ব্যাংকে পৃ কভাবে প্রেরণ করতে হবে।

এ নির্দেশ অবিলম্বে কার্যকর হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *